প্রাণ চেয়েছে তাই!

অনেক দিন থেকেই ইলিশের মাথা দিয়ে পাঁচমিশালি তরকারি ( ডাটা কুমড়া বেগুন আলু ঝিঙে মূলা) খাওয়ার ইচ্ছে করছিলো! রসদ যোগাড় হচ্ছিলো না। 

গত সপ্তাহে মিথীলা ডালাস থেকে ডাটা মূলা এনে দিয়েছে। 

এদিকে ঘরে কাঁঠালের বীচি ছিলো ( উত্তমের ছাত্র অমিয়র পাঠানো কাঁঠাল), ফ্রিজে চিংড়ি মাছ ছিলো, ইলিশের মাথা ছিলো। সাথে পেলাম ডাটা! আর যায় কোথা! ওয়ালমার্ট থেকে আলু বেগুন কুমড়ো কিনে আনলেই হয়ে গেলো।

ইলিশের মাথার তরকারির সাথে হঠাৎ ইচ্ছে করলো ডাটা, কাঁঠালের বীচি, আলু মূলো  চিংড়ি মাছ, ধনে পাতা দিয়ে ঝোল তরকারি খাওয়ার! 

এক ঢিলে দুই পাখি মেরে ফেললাম।

একই সবজি দুই ভাগে কেটে, পেঁয়াজ দুই ভাগে কেটে  ইলিশের মাথা আর চিংড়ি দুই বাটিতে রেখে দুই বার্নারে দুই ফ্রাইং প্যান বসিয়ে একই সময়ে রেঁধে ফেললাম প্রাণটায় খেতে চাওয়া দুই তরকারি। 

* *রান্নার সময় ব্রেন ঠিক কাজ করছিলো, ইলিশের তরকারিতে ঝোল দেইনি, ডাটা চিংড়ির তরকারিতে ঝোল দিয়েছি।

হ্যাঁ, ধনে পাতার কুচিটাও চিংড়ি ডাটার ঝোলেই দিয়েছি।**

আমার আবার বাঙালের দিশা, অল্পে পোষায় না! ঘরে দুইজন, রেঁধেছি দশজনের জন্য। আহা হা, প্যান ভর্তি তরকারি, দেখেও সুখ! ইলিশ চিংড়ির গন্ধে সারা বাড়ি ম ম করছে!

উত্তমের আজ পৌষ মাস, আমার কোমড়ের সর্বনাশ ( এতোক্ষণ দাঁড়িয়ে রান্নার কাজ করেছি)!

Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন

সাস্ক্রাইব করে সঙ্গে থাকুন